Home / বিনোদন / ব্যথার সোদনে ঘুমাতে পারিনা : প্রবীর মিত্র

ব্যথার সোদনে ঘুমাতে পারিনা : প্রবীর মিত্র

“যৌবন তো সেই কবেই পেরিয়েছে। পর্দা আর কত কাঁপাবো? বাতের ব্যথার সোদনে ঘুমাতে পারিনা। শাউয়ার শ্যুটিং করবো?”

সম্প্রতি এভাবেই প্রথম আলু সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে তাকে হ্যারাজমেন্ট করেন চিত্রনায়ক প্রবীর মিত্র। শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রথম আলুর সাথে একটি সাক্ষাৎকারের সময় এভাবেই বাজে কথা বলে সাংবাদিক খস্তগীরকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলার চেষ্টা করেন পাষন্ড এ অভিনেতা। বেশ কিছুদিন যাবৎই নাকি তিনি শারীরিক ও মানসিক অসুস্থতা সহ নানাবিধ ঝামেলায় ছিলেন। আর সেই রাগটাই তিনি এবার সংবাদকর্মীদের উপর ঝাড়লেন।

তবে প্রবীর মিত্রের মুখে গালিগালাজ ও আকথা কুকথা নতুন কিছু নয়। এমনটাই মনে করছেন শক্তিশালী অভিনেতা আবুল হায়াত। সাংবাদিককে হ্যারাজমেন্ট করার বিষয়টি জানতে পেরে আবুল হায়াত তৎক্ষণাত প্রথম আলু অফিসে ফোন করে প্রবীর মিত্রের সাথে কথা বলতে চান। এরপর প্রবীর মিত্রকে আহা’র (আবুল হায়াত) সাথে কথা বলতে বলা হলে প্রবীর মিত্র প্রথমে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান। অনীহা জানানো শেষে একপর্যায়ে তিনি ফোনটি হাতে নিয়ে কথা বলতে শুরু করেন। এসময় আহা প্রবির মিত্রকে বলেন, “শুয়র এসব কি শুরু করলে? শালা তোমাকে মারবো।”

তবে এসময় একদমই চুপ ছিলেন না প্রবীর। তিনি আবুল হায়াতের ঝাড়ি শুনে প্রথমদিকে ঠান্ডা থাকলেও কথার ফাঁকে তিনি চিত্রনায়ক কাজী মারুফকে কনফারেন্সে ডেকে আনেন। অপাশ থেকে আহা’র সাথে তৌকিরকেও কথা বলতে শোনা যায়। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে মারুফ আহাকে বলেন, “শালা রাষ্ট্রদোহী, তোমার টাকে টুথব্রাশ দিয়ে পেটাবো।” প্রতুত্তরে আহা বলেন, ‘তোর বাপ লাগি আমি শালা শূয়র। তোর বাপ আমার নাম চুরি করেছে। তোর বাপকেও পেটাবো।’

এসময় আহা’র জামাতা তৌকিরকে পাশ থেকে বলতে শোনা যায়, “আব্বা আমাকে দেন। ফোনটা আমাকে দেন। একটু সোদন শুনাই।”

রাত সোয়া এগারোটা পর্যন্ত কথা কাটাকাটি চলার শেষ পর্যায়ে গিয়ে দেখা যায়, ঘটনাস্থলে প্রবীর মিত্র অনুপস্থিত।

পরে অবশ্য বাসার নাম্বারে ফোন দিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে প্রবীর মিত্র বলেন, “আমি বাতের ব্যথার সোদনে চলে এসেছি।”

মন্তব্য করুনঃ
[X]